চৌরঙ্গি,কলিকাতা,২৪ শ্রাবণ, ১৩৩৫


 

শুভযোগ


যে সন্ধ্যায় প্রসন্ন লগনে

            পূর্ণচন্দ্রে হেরিল গগনে

                 উৎসুক ধরণী,

সর্বাঙ্গ বেষ্টিয়া তার তরঙ্গের ধন্য-ধন্য ধ্বনি

            মন্দ্রিয়া উঠিল কূলে কূলে;

নদীর গদ্‌গদ বাণী অশ্রুবেগে উঠে ফুলে ফুলে

            কোটালের বানে,

কী চেয়েছে কী বলেছে আপনি না জানে;

            সে সন্ধ্যায় প্রসন্ন লগনে

      তোমারে প্রথম দেখা দেখেছি জীবনে।

      যে বসন্তে উৎকণ্ঠিত দিনে

সাড়া এল চঞ্চল দক্ষিণে;

            পলাশের কুঁড়ি

একরাত্রে বর্ণবহ্নি জ্বালিল সমস্ত বন জুড়ি;

            শিমুল পাগল হয়ে মাতে,

অজস্র ঐশ্বর্যভার ভরে তার দরিদ্র শাখাতে,

            পাত্র করি পুরা

আকাশে আকাশে ঢালে রক্তফেন সুরা।

            উচ্ছ্বসিত সে এক নিমেষে

      যা-কিছু বলার ছিল বলেছি নিঃশেষে।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •