জোড়াসাঁকো, ৮ আষাঢ়, ১৩১০


 

২৭


তুমি আছ হিমাচল ভারতের অনন্তসঞ্চিত

তপস্যার মতো। স্তব্ধ ভূমানন্দ যেন রোমাঞ্চিত

নিবিড় নিগূঢ়-ভাবের পথশূন্য তোমার নির্জনে,

নিষ্কলঙ্ক নীহারের অভ্রভেদী আত্মবিসর্জনে।

তোমার সহস্র শৃঙ্গ বাহু তুলি কহিছে নীরবে

ঋষির আশ্বাসবাণী, "শুন শুন বিশ্বজন সবে,

জেনেছি, জেনেছি আমি।' যে ওঙ্কার আনন্দ-আলোতে

উঠেছিল ভারতের বিরাট গভীর বক্ষ হতে

আদি-অন্ত-বিহীনের অখণ্ড অমৃতলোক-পানে,

সে আজি উঠিছে বাজি, গিরি, তব বিপুল পাষাণে।

একদিন এ ভারতে বনে বনে হোমাগ্নি-আহুতি

ভাষাহারা মহাবার্তা প্রকাশিতে করেছে আকূতি,

সেই বহ্নিবাণী আজি অচল প্রস্তরশিখারূপে

শৃঙ্গে শৃঙ্গে কোন্‌ মন্ত্র উচ্ছ্বাসিছে মেঘধুম্রস্তূপে।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •