শান্তিনিকেতন,দোলপূর্ণিমা, ২২ ফাল্গুন, ১৩৩৪


 

বসন্ত


ওগো বসন্ত, হে ভুবনজয়ী,

বাজে বাণী তব "মাভৈঃ মাভৈঃ',

             বন্দীরা পেল ছাড়া।

দিগন্ত হতে শুনি তব সুর

মাটি ভেদ করি উঠে অঙ্কুর,

             কারাগারে দিল নাড়া।

জীবনের রণে নব অভিযানে

ছুটিতে হবে-যে নবীনেরা জানে,

দলে দলে আসে আমের মুকুল

             বনে বনে দেয় সাড়া।

কিশলয়দল হল চঞ্চল,

উতল প্রাণের কলকোলাহল

             শাখায় শাখায় উঠে।

মুক্তির গানে কাঁপে চারি ধার,

কানা দানবের মানা-দেওয়া দ্বার

              আজ গেল সব টুটে।

মরুযাত্রার পাথেয়-অমৃতে

পাত্র ভরিয়া আসে চারিভিতে

অগণিত ফুল, গুঞ্জনগীতে

              জাগে মৌমাছিপাড়া।

ওগো বসন্ত, হে ভুবনজয়ী,

দুর্গ কোথায়, অস্ত্র বা কই,

              কেন সুকুমার বেশ।

মৃত্যুদমন শৌর্য আপন

কী মায়ামন্ত্রে করিলে গোপন,

              তূণ তব নিঃশেষ।

বর্ম তোমার পল্লবদলে,

আগ্নেয়বাণ বনশাখাতলে

জ্বলিছে শ্যামল শীতল অনলে

              সকল তেজের বাড়া।

জড়দৈত্যের সাথে অনিবার

চিরসংগ্রামঘোষণা তোমার

              লিখিছ ধূলির পটে--

মনোহর রঙে লিপি ভূমিতলে

যুদ্ধের বাণী বিস্তারি চলে

              সিন্ধুর তটে তটে।

হে অজেয়, তব রণভূমি-'পরে

সুন্দর তার উৎসব করে,

দক্ষিণবায়ু মর্মর স্বরে

              বাজায় কাড়া-নাকাড়া।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •