[আলমোড়া, ৬ ভাদ্র,  ১৩১০ ]


 

ভূমিকা


জগৎ-পারাবারের তীরে

      ছেলেরা করে মেলা।

অন্তহীন গগনতল

মাথার 'পরে অচঞ্চল,

ফেনিল ওই সুনীল জল

      নাচিছে সারা বেলা।

উঠিছে তটে কী কোলাহল--

      ছেলেরা করে মেলা।

বালুকা দিয়ে বাঁধিছে ঘর,

      ঝিনুক নিয়ে খেলা।

বিপুল নীল সলিল-'পরি

ভাসায় তারা খেলার তরী

আপন হাতে হেলায় গড়ি

      পাতায়-গাঁথা ভেলা।

জগৎ-পারাবারের তীরে

      ছেলেরা করে খেলা।

জানে না তারা সাঁতার দেওয়া,

      জানে না জাল ফেলা।

ডুবারি ডুবে মুকুতা চেয়ে,

বণিক ধায় তরণী বেয়ে,

ছেলেরা নুড়ি কুড়ায়ে পেয়ে

      সাজায় বসি ঢেলা।

রতন ধন খোঁজে না তারা,

      জানে না জাল ফেলা।

ফেনিয়ে উঠে সাগর হাসে,

      হাসে সাগর-বেলা।

ভীষণ ঢেউ শিশুর কানে

রচিছে গাথা তরল তানে,

দোলনা ধরি যেমন গানে

      জননী দেয় ঠেলা।

সাগর খেলে শিশুর সাথে,

      হাসে সাগর-বেলা।

জগৎ-পারাবারের তীরে

      ছেলেরা করে মেলা।

ঝঞ্ঝা ফিরে গগনতলে,

তরণী ডুবে সুদূর জলে,

মরণ-দূত উড়িয়া চলে,

      ছেলেরা করে খেলা।

জগৎ-পারাবারের তীরে

      শিশুর মহামেলা।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •