উদয়ন, ১২ জানুয়ারি, ১৯৪১ - দুপুর


 


পরম সুন্দর

আলোকের স্নানপুণ্য প্রাতে।

অসীম অরূপ

রূপে রূপে স্পর্শমণি

রসমূর্তি করিছে রচনা,

প্রতিদিন

চিরনূতনের অভিষেক

চিরপুরাতন বেদীতলে।

মিলিয়া শ্যামলে নীলিমায়

ধরণীর উত্তরীয়

বুনে চলে ছায়াতে আলোতে।

আকাশের হৃৎস্পন্দন

পল্লবে পল্লবে দেয় দোলা।

প্রভাতের কন্ঠ হতে মণিহার করে ঝিলিমিলি

বন হতে বনে।

পাখিদের অকারণ গান

সাধুবাদ দিতে থাকে জীবনলক্ষ্মীরে।

সবকিছু সাথে মিশে মানুষের প্রীতির পরশ

অমৃতের অর্থ দেয় তারে,

মধুময় করে দেয় ধরণীর ধূলি,

সর্বত্র বিছায়ে দেয় চিরমানবের সিংহাসন।

 

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •